ঢাকাশনিবার , ১৭ জুলাই ২০২১
  1. #টপ৯
  2. #লিড
  3. অর্থনীতি
  4. আইন-আদালত
  5. আন্তর্জাতিক
  6. আন্দোলন
  7. ইচ্ছেডানা
  8. উদ্যোক্তা
  9. ক‌রোনা মহামা‌রি
  10. কৃষি
  11. ক্যাম্পাস
  12. খেলাধুলা
  13. গণমাধ্যম
  14. চাকুরীর খবর
  15. জাতীয়

কুশীলব ডেভিড বার্গম্যান ও তাসনিম খলিলরা আসলেই কী সাংবাদিক?

Link Copied!

এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের সরকার, সেনাবাহিনী, র‍্যাব নিয়ে অনেকবার গুজব ছড়িয়েছে তাসনিম খলিল। এমনকি জাতিসংঘকে নিয়ে গুজব ছড়াতেও দ্বিধা করেনি সে। একই সঙ্গে নিয়মিত উস্কানি দিয়ে যাচ্ছে দেশের মৌলবাদী ও জঙ্গিবাদী গ্রুপগুলোকে।

নিজের এসব দেশবিরোধী অপকর্ম লুকাতে এবং বৃহত্তর সাংবাদিক সমাজের শেল্টার পাওয়ার লক্ষ্যে প্রতিনিয়ত নিজেকে সাংবাদিক বলে দাবি করে সে। প্রোপাগান্ডা ওয়েবসাইট নেত্র নিউজের কুশীলব ডেভিড বার্গম্যান ও তাসনিম খলিলরা আসলেই কী সাংবাদিক? তাহলে তাদের সাংবাদিকতার নাম কি? নিয়মিত জঙ্গিবাদে উস্কানি দেওয়া এবং দেশের সরকার ও গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানকে নিয়ে মনগড়া ফেসবুক ফেসবুক স্ট্যাটাস দিয়ে গুজব ছড়ানোকেই কী তাহলে এরা দাবি করছে- অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা?

আসুন একনজরে এদের গত কিছুদিনের দেশ ও জাতীয় স্বার্থ বিরোধী ষড়যন্ত্র এবং ব্যর্থতা সম্পর্কে একনজর জেনে নেই।

অল্প কিছুদিন আগের ঘটনা। নাশকতার দায়ে সাজাপ্রাপ্ত একজন কয়েদির মৃত্যুর তথ্যকে টুইস্ট করে উগ্রবাদীদের উস্কে দেওয়ার চেষ্টা করে তাসনিম খলিল। তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে সে লেখে: কারাবন্দি অবস্থায় হেফাজত নেতা মাওলানা ইকবাল হোসেনের মৃত্যু। এই মৃত্যুর দায় আওয়ামী রাষ্ট্রের। সকল রাজবন্দিদের মুক্ত করতে হবে। কারা নির্যাতন বন্ধ করতে হবে।’

আপাত: দৃষ্টিতে এটিকে একটি প্রতিবাদী পোস্ট মনে হতে পারে। কিন্তু বাস্তবে আসলে কী? আমাদের মূল ধারার গণমাধ্যম থেকে জানা যায়: সুনির্দিষ্ট মামলায় আটকের পর কারাগারে যখন হেফাজত নেতা ইকবাল হোসেন অসুস্থ হয়ে যান, প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই তাকে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য প্রেরণ করা হয়। ১১ মে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য প্রেরণ করা এই ব্যক্তি মারা যান ২০ মে। অর্থাৎ এই কয়দিন তিনি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ছিলেন এবং সেটিও নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে। সুতরাং, কোনভাবেই কারাগারে বন্দি থাকা অবস্থায় তার মৃত্যু হয়নি।

অথচ মূল তথ্য গোপন করে, ধর্মীয় ট্রাম্পকার্ড খেলার মাধ্যমে উগ্রবাদীদের মাধ্যমে দেশকে অস্থিতিশীল করতে চেয়েছিল তাসনিম খলিল।

ঠিক একই রকমভাবে আল জাজিরায় কিঠু সত্যমিথ্যা মেশানো টুইস্টেট তথ্য সরবরাহ একটি থ্রিলার প্রকাশ করায় তারা। পরবর্তীতেত নিজেই ফেসবুকে স্টাটাস দেয় যে: ‘সোমবার আল-জাজিরার অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে বেশ কিছু ঘটনা প্রকাশিত হবার পর জাতিসংঘ বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর দুর্নীতি এবং অবৈধ কার্যাবলী নিয়ে পূর্ণ তদন্তের আহ্বান জানিয়েছে।’ এছাড়াও তৎকালীন সেনাপ্রধানকে নিয়েও সে লেখে: ‘জেনারেল আজিজকে কভার করতে গিয়ে যে জাতিসংঘের সাথে ঝামেলা লাগায় দিলা সেইটা কি ভাল হল? পিস কিপিং মিশনে ইসরাইলি ইমসি ক্যাচার? এখন ঠেলা সামলাও’

কিন্তু বাস্তবতা হলো, জাতিসংঘ কখনো পাত্তাই দেয়নি আল জাজিরার উদ্দেশ্যমূলক থ্রিলার সংবাদকে (নিউজ না বলে ভিউজ বলুন)।

সুলতান মির্জা, বি‌শিষ্ট রাজ‌নৈ‌তিক বি‌শ্লেষক। 

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।